• ঢাকা
  • রবিবার, ২৯ মে, ২০২২, ১৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯

হবিগঞ্জে কৃত্রিম সংকট দেখিয়ে রেভিনিউ স্টাম্প ও কোর্ট ফির দাম বৃদ্ধি


FavIcon
মোঃ রহমত আলী, হবিগঞ্জঃ
প্রকাশিত: জানুয়ারি ২৭, ২০২২, ১১:৫০ এএম
হবিগঞ্জে কৃত্রিম সংকট দেখিয়ে রেভিনিউ স্টাম্প ও কোর্ট ফির দাম  বৃদ্ধি
ছবি: সংগৃহীত

হবিগঞ্জ জেলায় সরকারি রেভিনিউ স্ট্যাম্প, কোর্ট ফি ও কার্ট্রিজ পেপারের কৃত্রিম সংকট তৈরী করে অস্বাভাবিক রকম বাড়িয়ে দেয়া হয়েছে দরকারি এসব জিনিসের দাম। ২ টাকার কোর্ট ফি ৩ টাকায়, ২০ টাকার রেভিনিউ স্টাম্প ও কোর্ট ফি ২৫ টাকায়, ৫০ টাকার কোর্ট ফি রেভিনিউ স্টাম্প ৬০ টাকায় ও ১ শত টাকার কোর্ট ফি রেভিনিউ স্টাম্প ১ শত ১০ থেকে ১ শত ২০ টাকায় বিক্রি করার অভিযোগ পাওয়া যাচ্ছে। হবিগঞ্জ জেলা আদালত প্রাঙ্গণ, বার সমিতি ভবন, পুরনো বার সমিতি ভবন, সদর উপজেলা সাব রেজিস্ট্রার কার্যালয় প্রাঙ্গণ সহ জেলার বিভিন্নস্থানে সরেজমিন অনুসন্ধানে এসব তথ্যের সত্যতা পাওয়া যায়। এ সময় কোন কোন স্ট্যাম্প ভেন্ডার নিয়মবহির্ভূতভাবে হবিগঞ্জ জেলা ট্রেজারী শাখা অননুমোদিত রেভিনিউ স্ট্যাম্প ও কোর্ট ফি বিক্রি করছেন বলে দেখা যায়। হবিগঞ্জের বিভিন্ন স্থানে জাল রেভিনিউ স্ট্যাম্প ও কোর্ট ফি ও বিক্রি করা হয় বলে তথ্য পাওয়া যায়। এ সময় দিদার মিয়া নামে একজন স্টাম্প ক্রেতা জানান, রেভিনিউ স্ট্যাম্প, কোর্ট ফি ও কার্টিজ পেপার এর সঠিক সরকারি দাম তারা জানেন না। এই সুযোগে আগে থেকেই এসব জিনিসের অতিরিক্ত দাম নিতেন স্ট্যাম্প ভেন্ডাররা। তারা বলেন,  করোনার অজুহাতে যোগান কম রয়েছে এসব কথা বলে স্ট্যাম্প ভেন্ডাররা এসব জিনিসের দাম আরো বাড়িয়ে দেন। হবিগঞ্জ জেলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি এডভোকেট মঞ্জুর উদ্দিন শাহীন জানান, রেভিনিউ স্টাম্প কার্ট্রিজ ও কোর্ট ফি এর দাম অতিরিক্ত নেয়া হচ্ছে। ন্যায্য মূল্যে বিক্রি এটা তাদের দাবি। এ সময় তিনি আরো বলেন, এ ব্যাপারে কোর্ট সংশ্লিষ্ট স্ট্যাম্প ভেন্ডার ও সরকারের সংশ্লিষ্ট দপ্তরে তিনি কথা বলবেন। অনুসন্ধানে  জানা যায়,  সরকারি নিয়ম অনুযায়ী যত টাকার কোর্ট ফি ও  স্টাম্প ঠিক তত টাকায় বিক্রয় করার কথা। এছাড়া সরকারি নিয়ম অনুযায়ী প্রতিটি স্টাম্প ও কোর্ট ফি এর বিপরীতে স্ট্যাম্প ভেন্ডারদের নির্দিষ্ট মুনাফা ধার্য করা হয়েছে। নিয়মকানুন থাকলেও এসব নিয়মের থোড়াই কেয়ার করে নিয়মবহির্ভূতভাবে বাড়তি দাম নিচ্ছেন স্টাম্প ভেন্ডাররা। যখন তখন নিজেদের খেয়ালখুশি মতো বিভিন্ন অজুহাতে এসব জিনিসের দাম বাড়িয়েই চলেছেন তারা। এসব ব্যাপারে কেউ কিছু জিজ্ঞেস করলেই তারা সকলেই উত্তর দেন চাহিদা অনুযায়ী নাকি তারা স্টাম্প ও কোর্ট ফি পান না। তাদের এ দাবিকে প্রতিষ্ঠা করতে মাস দুয়েক আগে হবিগঞ্জ জেলা স্ট্যাম্প ভেন্ডার সমিতির সভাপতি আতাউর রহমান ও সাধারণ সম্পাদক আব্বাস উদ্দিন আহমেদ হবিগঞ্জ জেলা প্রশাসকের নিকট জুডিশিয়াল স্ট্যাম্প নন জুডিশিয়াল স্ট্যাম্প কার্টিজ পেপার ও কোর্ট ফির অপর্যাপ্ততা রয়েছে জানিয়ে দরখাস্ত করেন। এসময় হবিগঞ্জের অনেক পত্রিকায় এসব জিনিসের সংকট রয়েছে বলে সংবাদ পরিবেশিত হয়। বেশি দামে সার বিক্রি করছেন এ কথা এ প্রতিবেদক জিজ্ঞেস করাতে হবিগঞ্জ জেলা স্ট্যাম্প ভেন্ডার সমিতির সভাপতি আতাউর রহমান জেলা প্রশাসকের নিকট করা দরখাস্ত ও বিভিন্ন পত্রিকায় প্রকাশিত এ সম্পর্কিত সংবাদ প্রদর্শন করেন। এছাড়া হবিগঞ্জ জেলা ট্রেজারী শাখা থেকে চাহিদামত স্টাম্প ও কোর্ট ফি সরবরাহ পাননা বলে তিনি দাবি করেন। কিন্তু ট্রেজারী শাখার  সাথে যোগাযোগ করলে পাওয়া যায় ভিন্ন তথ্য। হবিগঞ্জ জেলা ট্রেজারী শাখার সহকারি পরিচালক মোঃ কামরুজ্জামান জানান, রেভিনিউ স্টাম্প কার্টিজ পেপার ও কোর্ট ফির কোন সংকট নেই। এসব জিনিস পর্যাপ্ত পরিমাণে আগে থেকেই মজুদ করা থাকে। স্ট্যাম্প ভেন্ডার এর চাহিদা অনুযায়ী নিয়মিত এসব জিনিস সরবরাহ করা হয়। স্ট্যাম্প ভেন্ডার যার চাহিদা জানালে সাপ্লাই কম দেখানোর কোনো সুযোগ নেই। এখানে স্টাম্প কোন ক্ষেত্রে না থাকলে প্রয়োজনে ঢাকা থেকে আনিয়ে দেয়া হয়। তিনি আরো জানান, স্ট্যাম্প ভেন্ডাররা কেন অতিরিক্ত দামে স্টাম্প বিক্রি করছেন এ ব্যাপারে তাদেরকে ডেকে এনে জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে। 



Side banner